আন্তর্জাতিকস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা

করোনা ভাইরাস: মাস্ক ব্যবহার নিয়ে দেবী শেঠী’র পরার্মশ

দক্ষিণ চট্টলা ডেস্ক:  বিশ্বব্যাপী মরণঘাতি ভাইরাস করোনা (কোভিড-১৯) ছড়িয়ে পড়ার পর বেড়ে গেছে ফেস মাস্ক পরার প্রবণতা। ফলে বিশ্বব্যাপী দেখা দেয় সব ধরণের মাস্ক সংকট। কিন্তু এই মাস্ক ব্যবহার নিয়ে আছে নানা জনের নানা মত। কারও মত মাস্ক পরার প্রয়োজন নেই, কারও মত সবার মাস্ক পরা উচিৎ। এই মাস্কের মধ্যে আছে নানা প্রকারভেদ। কোনটা পরবো? এন ৯৫ না কাপড়ের মাস্ক?। এ বিষয়ে বিভিন্ন জন বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কোনটি উত্তম আর কোনটি অধম। তবে এবার কাপড়ের মাস্ক ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছেন প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ও ভারতের বিখ্যাত চিকিৎসক ডা. দেবী শেঠী।

তার মত, সার্জিক্যাল মাস্কের মতোই কাপড়ের মাস্ক নিরাপদ। তাই কাপড়ের মাস্ক ব্যবহার করতে সাহস দিয়েছেন। সম্প্রতি এক ভিডিওবার্তায় এমন পরামর্শ দেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমি অপারেশনের সময় সার্জিক্যাল মাস্ক পরি; যাতে কাশি দিলে আমার রোগী সংক্রমিত না হন।’

তিনি জানতে চান, সবাই কেন সার্জিক্যাল মাস্ক পরছেন? ডাক্তার, নার্স, প্যারামেডিকসরা করোনা রোগীদের সেবা দিচ্ছেন। তাদের মাস্কগুলো সবাই কেন পরছে? যে কারণে চিকিৎসকরা মাস্ক পাচ্ছেন না। ফলে ডাক্তার-নার্সরা অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

দেবী শেঠী বলেন, ‘সার্জিক্যাল মাস্ক মাত্র ৬ ঘণ্টা ব্যবহার করা যায়। এরপর বাড়ি গিয়ে সেটি টেবিলে বা কোথাও রেখে দেন। আপনার শিশু তা স্পর্শ করতে পারে। এভাবে একটি মাস্ক থেকে সেও সংক্রমিত হতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আপনার নিঃশ্বাস নির্গত উপাদান এই মাস্ক শুষে নিতে পারে না। আপনি যখন এটি ডাস্টবিনে ফেলেন, তখন ময়লাওয়ালা এটি আবার ব্যবহার করতে পারেন। এর মাধ্যমে ভাইরাস পুনরায় উৎপাদন হবে।’

তবে ভাববেন না যে, মাস্ক পরার দরকার নেই। আপনাকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। তবে দয়াকরে কাপড়ের মাস্ক পরুন। কাপড় কোনো কিছু শুষে নিতে পারে। এটি ধুয়ে দিতে পারেন, শুকাতে পারেন, আবারও পরতে পারেন।

তাই মনে রাখবেন, ব্যবহারের জন্য কাপড়ের মাস্ক কিন্তু সার্জিক্যাল মাস্কের মতোই নিরাপদ। এতে টাকাও বাঁচলো, নিরাপদও থাকলেন। চিকিৎসকদের আর মাস্ক সংকটে পড়তে হবে না। সুতরাং আপনি ডা. দেবী শেঠীর পরামর্শটি মানতে পারেন।

এখানে মন্তব্য করুন