খেলাধূলা

বাংলাদেশের যুবারা বিশ্বকাপের ফাইনালে

দক্ষিণ চট্টলা ডেস্ক:  অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশের যুবারা। আসরের দ্বিতীয় সেমি ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে ছোট টাইগাররা। নিউজিল্যান্ডের গড়া ২১১ রানের মামুলি স্কোরকে টপকে গেছে বাংলাদেশ ৩৫ বল হাতে রেখে। জয়ের নায়ক ব্যাটসম্যান মাহমুদুল হাসান জয়। দুর্দান্ত সেঞ্চুরি হাঁকান এই মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান। ১২৭ বলে ১৩ বাউন্ডারিতে ১০০ রান করে মাহমুদুল হাসান যখন প্যাভিলিওনে ফিরছেন তখন ম্যাচ জয় থেকে মাত্র ১১ রান দূরে দাঁড়িয়ে ছিলো বাংলাদেশ।

ম্যাচ জয়ের এই ব্যবধানই জানান দিচ্ছে মোটেও পাত্তা পায়নি নিউজিল্যান্ড। অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ফাইনাল খেলছে বাংলাদেশ। রোববার, ৯ ফেব্রুয়ারি পচেফট্রুম স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ প্রতিবেশি ভারত।

অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ খেলছে ১৯৯৮ সাল থেকে। টুর্নামেন্টের এটি ১২ তম আসর। আর এই প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ মর্যাদাপূর্ণ টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলছে। এর আগে ২০১৬ সালের অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল পর্যন্ত খেলেছিল বাংলাদেশ। সেই বিশ্বকাপে বাংলাদেশ তৃতীয় স্থান পেয়েছিল।

নিউজিল্যান্ডের ২১১ রানের পিছু তাড়া করতে নেমে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ শুরুতে উইকেট হারায়। শুরুর ৮.২ ওভারে ৩২ রানে বাংলাদেশের দুই ওপেনার বিদায় নেন। তৃতীয় উইকেট জুটিতে তৌহিদ হৃদয় ও মাহমুদুল হাসান জয় বাংলাদেশ দলকে জয়ের পথে রাখেন। এই জুটিতে যোগ হয় ৬৮ রান। তৌহিদ হৃদয় ৪৭ বলে ৪০ রান করে স্পিনার অশোকের বলে স্ট্যাম্প আউট হন।

ব্যাটিংয়ের বাকি সময়টায় প্রায় একক কৃতিত্ব দেখান মাহমুদুল হাসান জয়। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান নিখুঁত ও নির্ভুল ক্রিকেট খেলেন এই তরুণ। ৭৭ বলে পাঁচটি বাউন্ডারিতে জয় তার হাফসেঞ্চুরি পুরো করেন। তবে হাফসেঞ্চুরির পর জয়ের ব্যাটিংয়ে সুস্পষ্ঠ পরিকল্পনার ছাপটাই জানান দেয়-বাংলাদেশকে ফাইনালে তুলে আনতেই এই ম্যাচে নেমেছেন তিনি!

ধীরে ধীরে নিজের সেঞ্চুরির পথে এগিয়ে যান। সেই সঙ্গে দলের সহজ জয়ও নিশ্চিত করেন। ১২৬ বলে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে মাহমুদুল হাসান জয় সেমিফাইনাইলের সেরা পারফর্মার। অনুর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে এটি জয়ের চতুর্থ সেঞ্চুরি। বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে সবমিলিয়ে ৫০ গড়ে তার এগার শ’র বেশি রান রয়েছে।

বোলিংয়ের মতো ব্যাটিংয়েরও প্রায় পুরোটা সময় জুড়েই বাংলাদেশ এই সেমিফাইনালে একচ্ছত্র দাপট দেখায়। শেষ ১০ ওভারে ম্যাচ জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন দাঁড়ায় মাত্র ২৩ রান। হাতে জমা তখনো ৭ উইকেট। সহজ সেই টার্গেট পেরিয়ে যেতে বেশি সময় নেয়নি বাংলাদেশ। নিরাপদ এবং নির্ভুল ব্যাটিংয়ের দুর্দান্ত উদাহরণ তৈরি করে বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে নাম লেখালো। বিশ্বকাপ জয় থেকে আর মাত্র এক ম্যাচ দূরে বাংলাদেশ। রোববারের ফাইনালে ভারতকে হারালেই মিশন সফল!

এখানে মন্তব্য করুন